মুজিব নগর দিবস

মুজিব নগর দিবস

গ্রন্থনা: দেওয়ান মোহাম্মদ অহসান হাবীব

————————————————————-

প্রিয় শ্রোতা, আজ ১৭ই এপ্রিল, ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস।  ১৯৭১ খ্রিস্টাব্দের এইদিনে মেহেরপুরের বৈদ্যনাথ তলার আম্র কাননে বাংলাদেশের যুদ্ধকালীন সরকার শপথ গ্রহণ করে এবং এই স্থান থেকেই বাংলাদেশের স্বাধীনতার ঘোষণাপত্র পাঠ করা হয়।

মূলত, মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন বাংলাদেশের অস্থায়ী সরকার বা মুজিবনগর সরকার গঠিত হয় ১৯৭১ খ্রিস্টাব্দের ১০ই এপ্রিল। ১৯৭১ খ্রিস্টাব্দের ১৭ই এপ্রিল এই সরকারের মন্ত্রীপরিষদের সদস্যরা শপথ গ্রহণ করেন। ১৯৭১ খ্রিস্টাব্দের ২৬শে মার্চ বাংলাদেশের স্বাধীনতা ঘোষণা এবং পাকিস্তানী হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে দেশের জনগণের প্রতিরোধ যুদ্ধ শুরু হলেও বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ পরিচালনার জন্য মুক্তিবাহিনী সংগঠন, সমন্বয় ও আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সমর্থন আদায়ে এই সরকারের ভূমিকা ছিল অপরিসীম। এই সরকার গঠনের সঙ্গে সঙ্গে পাকিস্তানী হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে প্রতিরোধ যুদ্ধ প্রবল যুদ্ধে রূপ নেয় এবং স্বাধীন ও সার্বভৌম রাষ্ট্র হিসেবে বাংলাদেশের বিজয় অর্জন ত্বরান্বিত হয়।

আজকের এই দিনে ১৯৭১ খ্রিস্টাব্দে কোরআন তেলাওয়াত ও বাংলাদেশের জাতীয় সংগীত পরিবেশনের মধ্য দিয়ে মুজিবনগর সরকার-এর শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানের সূচনা হয়। শুরুতেই বাংলাদেশকে ‘গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ’ রূপে ঘোষণা করা হয়। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে রাষ্ট্রপতি হিসেবে ঘোষণা করে গঠিত মুজিব নগর সরকারের অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি ছিলেন সৈয়দ নজরুল ইসলাম এবং প্রধানমন্ত্রী ছিলেন তাজউদ্দীন আহমদ। অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি অনুষ্ঠানে একে একে প্রধানমন্ত্রী ও তার তিন সহকর্মীকে আমন্ত্রিত অতিথি এবং দেশী-বিদেশী সাংবাদিকদের নিকট পরিচয় করিয়ে দিয়েছিলেন।  নতুন রাষ্ট্রের সশস্ত্র বাহিনীর প্রধান হিসেবে কর্নেল এম এ জি ওসমানীর নাম ঘোষণা করা হয় । এরপর সেখানে বাংলাদেশের স্বাধীনতার ঘোষণাপত্র পাঠ করা হয়। এই দিন থেকেই  সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালী জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নাম অনুসারে শপথ গ্রহণ স্থানের নাম দেয়া হয় মুজিবনগর। অনুষ্ঠানে অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি সৈয়দ নজরুল ইসলামকে গার্ড অব অনার প্রদান করা হয়।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের অনুপস্থিতিতে মুক্তিকামী জনগণকে স্বাধীনতার সংগ্রামে ঐক্যবদ্ধ থাকতে অনুপ্রেরণা দেয় এই মুজিবনগর সরকার এবং এরই ধারাবাহিকতায় ১৯৭১ খ্রিস্টাব্দের ১৬ই ডিসেম্বর পাকিস্তানী হানাদারদের পরাজিত করে বাঙালি দীর্ঘদিনের আকাঙ্ক্ষিত স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্ব অর্জন করে ।

আজকের এই দিনে  আমরা  সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালী জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং মুজিব নগর সরকারসহ দেশমাতৃকার স্বাধীনতা অর্জনে সংশ্লিষ্ট সকল অকুতোভয় মুক্তিযোদ্বার প্রতি আমাদের বিনম্র শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করছি।

———————————–

Print Friendly, PDF & Email

Copyright © 2020 |Traffic FM Privacy Policy|Site Edited by Deputy Director (Traffic) | Maintained By Director (Traffic) | Supervised By DDG(Programme), Bangladesh Betar | Developed By SA Web Service