রমজান উপলক্ষে কোরআন হাদীসের বাণী (সংকলণ-২০১৮ খ্রিঃ)

কোরআনের বাণী:

  • মানুষের  উচিত তার  খাদ্যবস্তুর  দিকে  লক্ষ্য  করা । এক  অত্যাশ্চর্য  পদ্ধতিতে আমি  পানি  বর্ষণ করেছি। অতঃপর অভিনব  পদ্ধতিতে  আমি  জমিনকে  বিদীর্ন করে  তা  থেকে  নানা  ধরনের শস্য , শাকসব্জি , জইতুন,  ঘন বৃক্ষরাজি পূর্ণ  বাগ–বাগিচা , ফলমূল  ও  তৃণরাজি  উৎপাদন করেছি । আর এসব  হল তোমাদের  ও তোমাদের গৃহপালিত পশুপাখির  জন্য বিশেষ  উপকারি। -সুরা আবাসা / আয়াতঃ ২৩-৩২।
  • নিঃসন্দেহে, অপব্যয়িরা  শয়তানের বান্ধব। বস্তুত শয়তান স্বীয় প্রভুর  নিকট বড়ই  অকৃতজ্ঞ । -সুরা  বনি  ইসরাইল /আয়াত -২৭ ।
  • আহার  কর, পান  কর। কিন্তু অমিতচার কর না । আল্লাহ্‌ অমিতচারিকে ভালোবাসেন না । -সুরা আরাফ / আয়াত -৩১ ।
  • হে  ঈমানদারগণ!  তোমাদের ওপর রোযা ফরয  করা  হয়েছে, যেমন  তোমাদের পূর্ববর্তী নবীদের  অনুসারীদের ওপর ফরয  করা হয়েছিল ।  এ থেকে  আশা  করা যায় , তোমাদের মধ্যে তাকওয়ার গুণাবলি  সৃষ্টি  হয়ে  যাবে । -সুরা বাকারা / আয়াত – ১৮৩।

হাদীসের বাণী:

  • হযরত  আবু  হুরাইরাহ ( রাঃ) বলেন ,“আল্লাহ্‌র রসুল  (সাঃ) বলেছেন , যখন   রমজান মাস  আগমন করে ,  তখন আসমানের দরজাসমুহ খোলা  হয় ,  জাহান্নামের দরজাসমুহ বন্ধ  করা হয় এবং শয়তানগুলো  শৃংখলাবদ্ধ হয় ”।  -আল বুখারি / ১৮০০।
  • রমযান মাসের  সিয়াম – দশ  মাসের সমতুল্য এবং শাওয়ালের ছয় দিনের সিয়াম  -দুই মাসের সমতুল্য । এ  যেন  সারা  বছরের সিয়াম । -মুসনাদ আহমাদ / ২১৭৮ ।
  • কিয়ামতের  দিনে সাওম ও  কুরআন, বান্দার  জন্য  সুপারিশ করবে । -মুসনাদ আহমাদ / ৬৩৩৭।
  • যে মিথ্যা কথা  ও কাজ এবং  মুর্খতা  পরিত্যাগ  করতে পারল না ,  তার পানাহার  বর্জনে আল্লাহ্‌র কোন  প্রয়োজন নেই  । -সহিহ  বুখারি / ১৭৭০।
  • সাওম  ঢাল স্বরুপ। তোমাদের  কেউ  যেন সাওম পালনের  দিনে অশ্লিল আচরণ ও শোরগোল না  করে । যদি তাকে কেউ গালি দেয় বা  তার সাথে  ঝগড়া করে  তখন  সে  যেন  বলে “আমি  রোযাদার” । –সহিহ বুখারি/ ১৭৭১ ।
  • তোমরা  সাহরি খাও , কারণ সাহরিতে বরকত রয়েছে । –সহিহ বুখারি / ১৭৮৯।
  • মানুষ যতদিন পর্যন্ত তাড়াতাড়ি ইফতার করবে, ততদিন কল্যাণের সাথে  থাকবে।  -সহিহ বুখারি / ২৮২১ ।
  • পবিত্র  কোরআন ও  হাদিসে  বর্ণিত  আছে – যে  ব্যক্তি রোযাদারকে  ইফতার  করাবে সে  রোযাদারের সমান  সওয়াব  পাবে এবং  রোযাদারের সওয়াবও  কোন  ক্ষেত্রে  কম  হবে না । -তিরমিযি/১৭১ ও ৮০৭ ।
  • তিন  ব্যাক্তির  দোয়া  কবুল  হয়: ন্যায় পরায়ন নেতা ,  রোযাদার যখন  ইফতার  করে, নির্যাতিত ব্যাক্তি । -সুনান তিরমিযি/ ২৪৪৯।
  • যখন  তোমাদের  কেহ ইফতার  করে ,  সে  যেন খেজুর দ্বারা ইফতার  করে, কেননা  উহাতে বরকত  রয়েছে । যদি  খেজুর  না পায় তবে  যেন  পানি  দ্বারা ইফতার  করে, কেননা  উহা  হল  পবিত্রকারী ।
  • হাদিস শরিফে  বর্নিত  আছে – আল্লাহ্‌র নিকট  অধিকতর  প্রিয়  তারাই, যারা শীঘ্র শীঘ্র  ইফতার  করে ।
  • রমজানের প্রথম দশক হলো রহমতের, মধ্য দশক হলো মাগফিরাতের,  এবং শেষ দশক হলো নাজাতের।
  • যে ব্যাক্তি  রমযানের প্রথম  থেকে  শেষ  পর্যন্ত আল্লাহ্‌র প্রতি  পূর্ণ  ঈমান ও  বিশ্বাসের  সাথে  রোযা  পালন  করবে  ও  রাত্রি  জেগে  ইবাদত  করবে সে  হয়ে  যাবে  ভুমিষ্ট  শিশুর  মতই   নিষ্পাপ ।
  • হাদিস  শরিফে  বর্নিত  আছে –আল্লাহ্‌ পাক  বলেন – রোযা  আমারই  জন্য ,  তাই  রোযার  প্রতিদান  আমিই  দেব ।

সংগ্রহ ও উপস্থাপন: কামরুন্নাহার হেলেন।

চুক্তিবদ্ধ এককালীন শিল্পী

ট্রাফিক সম্প্রচার কার্যক্রম

বাংলাদেশ বেতার।



Print Friendly, PDF & Email

Copyright © 2020 |Traffic FM Privacy Policy|Site Edited by Deputy Director (Traffic) | Maintained By Director (Traffic) | Supervised By DDG(Programme), Bangladesh Betar | Developed By SA Web Service